ছিলেন সুন্দরী, হলেন ভুতুড়ে; তরুণী নিজেই জানালেন রহস্য

0
89

বছর খানেক আগে এক তরুণীর ছবি ঘিরে শোরগোল পড়েছিলো। অ্যাঞ্জেলিনা জোলির মতো হতে গিয়ে ‘খোদার উপরে খোদকারি’র চেষ্টায় বিপত্তি ঘটিয়েছিলেন ইরানের এক তরুণী।

হয়ে উঠেছিলেন কুৎসিত। যাকে দেখলে দিনের আলোতেও আঁতকে উঠবেন যে কেউ। গল্পের বইতে ডাইনি বা প্রেতিনীদের যেসব ছবি দেখা যায়, প্রায় সেই রকমই দেখতে হয়ে গিয়েছিলেন তিনি। তখন জানা গিয়েছিল, চেহারায় এমন পরিবর্তন আনার জন্য তিনি অন্তত ৫০টি অস্ত্রোপচার করিয়েছেন।

বছর ঘুরতে না ঘুরতেই আবার ফিরে এসেছে সাহার তাবার নামের ২০ বছরের সেই তরুণী। সেই সময় অনেকেই তাঁর ছবি দেখে খারাপ সব মন্তব্য করেছিলেন। এবার সাহার সামনে আনলেন তাঁর আসল চেহারা। সে ছবিতে তাঁর রূপের জৌলুস দেখে তাক লেগে যেতে বাধ্য।

তরুণী জানিয়েছেন, নিছকই ইনস্টাগ্রামের ফলোয়ার বাড়াতে নিজের ছবিতে ফটোশপ করে নিজেকে কুৎসিত দর্শন করে তুলেছিলেন তিনি। অ্যাঞ্জেলিনা জোলি হওয়ার কোনও ইচ্ছে তাঁর ছিল না।

ব্রিটিশ গণমাধ্যম ‘ডেইলিমেইল’-এ প্রকাশিত এক প্রতিবেদন থেকে জানা যাচ্ছে, সবটাই মেক আপ আর ফোটো এডিটিং-এ জাদু নয়। সত্যি সত্যিই কয়েকটি অস্ত্রোপচার করিয়েছিলেন সাহার। তবে তার ফলে তিনি ভয়ঙ্কর দর্শন কুরূপা হয়ে উঠেছিলেন, তা নয়। স্রেফ ফোটো এডিটিং-এর কায়দাবাজিতে নিজের চেহারাকে বদলে সকলের সামনে পেশ করেছিলেন তিনি।

সাহার তাবারের মতে, তাঁর এই ভোল বদল আসলে শৈল্পিক এক এক্সপেরিমেন্ট। তাঁর আসল ছবি দেখে রীতিমতো চমকে গিয়েছেন নেটিজেনরা। প্রশ্ন উঠছে, এমন সুন্দর চেহারাকে বিকৃত করে জনপ্রিয় হওয়ার অর্থ কী?