একদিন এক ছোট্ট ছেলে তার বাবাকে জিজ্ঞেস করলোঃ “বাবা, জীবনের মানে কি?”

0
56

বাবাঃ তুমি সুন্দর দেখতে এই পাথরটি বাজারে নিয়ে যাও। কেউ যদি দাম জিজ্ঞেস করে তবে তুমি কিছু না বলে শুধু দুটি আঙুল দেখাবে।

যথারীতি ছেলেটি পাথরটি নিয়ে বাজারে গেল, এক মহিলা বাজারে ছেলেটিকে পাথরের দাম জিজ্ঞেস করলো, ছেলেটি দুটি আঙুল দেখালে মহিলা তাকে দু’শত টাকা দাম দিতে চাইলো। ছেলেটি বাড়ী ফিরে তার বাবাকে ঘটনাটি বলল। তার বাবা তাকে পরদিন একই রকম আরেকটি পাথর নিয়ে যাদুঘরে নিয়ে যাতে বললেন, আর বলল কেউ দাম জিজ্ঞেস করলে দুটি আঙুল দেখাবে, ছেলেটি তাই করলো। যাদুঘরে এক ব্যক্তি পাথর টি ঘরে সাজিয়ে রাখবে বলে কিনতে চাইলে ছেলেটি দুটি আঙুল দেখালে লোকটি তাকে দু হাজার টাকা দাম দিতে চাইলো।

ছেলেটি বাড়ী ফিরে তার বাবাকে যাদুঘরে ঘটে যাওয়া ঘটনা শুনালো। বাবা ছেলেকে পরদিন একই রকম একটি পাথর নিয়ে রত্নপাথরের দোকানে যেতে বললেন আর কেউ দাম জিজ্ঞেস করলে কিছু না বলে দুটি আঙুল দেখাতে বললেন। যথারীতি ছেলেটি একটি রত্নপাথরের দোকানে গিয়ে পাথরটি দেখালে দোকানী দাম জিজ্ঞেস করলো, ছেলেটি কিছু না বলে দুটি আঙুল দেখালে দোকানী তাকে দু লাখ টাকা দাম দিতে চাইলো। ছেলেটি দৌড়ে বাড়ী ফিরে তার বাবাকে অবাক হয়ে জিজ্ঞেস করলোঃ একই পাথর বাজারে দু’শত টাকা, যাদুঘরে দু’হাজার টাকা আর রত্নপাথরের দোকানে দু’লাখ টাকা দিতে চাইলো কেন? বাবা বললেনঃ দেখ বাবা, প্রতিটি মানুষের ভেতরে কিছু সুপ্তপ্রতিভা আছে, সে দেশেরই হোক, যে রঙের হোক। মানুষকে মহত্বের সাথে মূল্যায়ন করতে হয়।

ছেলেটিকে তার বাবা যে পাথরটি দিয়েছিলেন সেটি হীরের টুকরো ছিলো। প্রতিটি মানুষের মাঝে দামী হীরে লুকায়িত আছে। শুধু তাকে সঠিক স্থানে, সঠিক পাত্রে ব্যবহার করা প্রয়োজন। শুধু প্রয়োজন মানুষের সাথে মহত্বের সাথে আচরণ করা। মানুষ খারাপ হয় পরিবেশ পরিস্থিতির কারনে। মানুষ খারাপ হয়ে জন্ম নেয় না।