দাঁত একদম সাদা ঝকঝকে করতে আজই ব্যাবহার করুন এই জিনিস, হাতেনাতে ফল পাবেনই পাবেন

0
260

দাঁত একদম সাদা – মুখ মানুষের সম্পর্কে অনেক কিছু বলে থাকে। আর মুখের মধ্যে সব থেকে মূল্যবান হল হাসি, এই হাসি তখনই ভালো লাগে যখন দাঁত সুন্দর ও চকচকে হয়। কারো সাথে প্রথম দেখা হলে তার সম্পর্কে একটা ধারণা তৈরি হয় এই হাসির জন্যই।

তাই অন্যের মনে নিজের সম্পর্কে একটা ভালো ছাপ ফেলার জন্য সবার আগে যা জরুরি তা হলো দাঁতকে চকচকে রাখা। কিন্তু অনেকেই দাঁতের হলুদ রঙের জন্য ভুগে থাকে, ভালো করে করো সাথে কথা বলতে পারে না। কিন্তু মাত্র ২ মিনিটেই দাঁতের হলুদ রঙ থেকে মুক্তি পাওয়া সম্ভব। এবং একই সাথে চকচকে দাঁতের অধিকারী হওয়াও সম্ভব। আসুন জেনে নেয়া যাক কিভাবে সেটি সম্ভব।

দাঁত একদম সাদা ঝকঝকে করতে আজই ব্যাবহার করুন এই জিনিস, হাতেনাতে ফল পাবেনই পাবেন

এই জন্য দরকার টুথপেস্ট, বেকিং সোডা , লবণ, লেবুর রস ও কফি । প্রথমে একটি ছোট্ট পাত্রে পরিমাণ মতো টুথপেস্ট নিন তারপর এর সাথে অর্ধেক চামচ বেকিং সোডা নিন, এর ওপর অল্প লবণ দিন এবং তারপর এর সাথে অর্ধেক চামচ পাতি লেবুর রস দিয়ে ভালো ভাবে মিশ্রণ তৈরি করুন।বেকিং সোডা না থাকলে আপনি এর বদলে ইনো ও ব্যবহার করতে পারেন।তবে মনে রাখতে হবে ইনো ব্যবহারের ক্ষেত্রে খুব অল্প পরিমাণে ইনো ব্যবহার করতে হবে। এবং সব শেষে এর সাথে কফি যোগ করে ভালো ভাবে মিশ্রণটি তৈরি করে ফেলুন।

দাঁত একদম সাদা ঝকঝকে করতে আজই ব্যাবহার করুন এই জিনিস, হাতেনাতে ফল পাবেনই পাবেন

এরপর মিশ্রণটি তৈরি হয়ে গেলে সেটিকে ব্রাশে করে নিয়ে দাঁত মাজুন। এটি শুধুমাত্র একবার করার ফলেই আপনার দাঁত হিরের মতো সাদা ও উজ্জ্বল দেখাবে। তবে এটি করার সময়ে একটা জিনিস অবশ্যই মাথায় রাখবেন, যেনো 2 মিনিটের বেশী ওই মিশ্রণ টি ব্যবহার করা না হয়। কারণ এই মিশ্রণে আগে থেকেই বেকিং সোডা বা ইনো ব্যবহার করা হয়েছিলো যার ফলে একবার ব্যবহার করলেই দাঁত চকচকে হয়ে যাবে। বরং বেশি ব্যবহারে দাঁতের ক্ষতিই হতে পারে। তাই চেষ্টা করুন 2 মিনিটের কম সময়ে এই মিশ্রণটি ব্যবহার করার।

দাঁত একদম সাদা ঝকঝকে করতে আজই ব্যাবহার করুন এই জিনিস, হাতেনাতে ফল পাবেনই পাবেন

এই মিশ্রণটি ব্যবহার করলে আপনার সমস্যার সমাধান হয়ে যাবে এবং আপনি রাতারাতি চকচকে দাঁতের অধিকারী হয়ে উঠবেন। ভালো লাগলে বন্ধুদের সাথে শেয়ার করে জানিয়ে দিন।

দাঁত একদম সাদা ঝকঝকে করতে আজই ব্যাবহার করুন এই জিনিস, হাতেনাতে ফল পাবেনই পাবেন

মধু খেলেই ৭ জটিল সমস্যার সমাধান

নানা গুণের মধুর উপকারিতা সম্পর্কে কম বেশি সবাই জানি। গবেষণায় দেখা গেছে, মধু ও দারুচিনির মিশ্রণ স্বাস্থ্যের জন্য খুবই উপকারি।

হৃদরোগ থেকে শুরু করে ওজন কমানো পর্যন্ত প্রায় সব কিছুতেই মধু-দারুচিনির মিশ্রণ অত্যন্ত কার্যকরী। জেনে নিতে পারেন, মধু খেলে যে ৭ জটিল সমস্যা সহজেই সমাধান করতে পারবেন।

১) হৃদরোগ: হার্ট সুস্থ্য রাখার জন্য দারুচিনি ও মধুর পানির কোনও বিকল্প নেই। প্রতিদিন সকালে এক গ্লাস মধু ও দারুচিনি মিশ্রিত পানি পান করলে হৃদরোগের ঝুঁকি অনেকটাই কমানো সম্ভব। এই মিশ্রণ রক্তের কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রেখে হৃদরোগের সম্ভাবনা অনেকটাই কমিয়ে দেবে।

২) কোলেস্টরল: এক কাপ চায়ের সঙ্গে দুই টেবিল চামচ মধুর সঙ্গে তিন টেবিল চামচ দারুচিনি গুঁড়ো মিশিয়ে পান করুন। এটি রক্তে কোলেস্টরলের মাত্রা অন্তত ১০ শতাংশ কমেয়ে দেবে। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রাখতেও এই মিশ্রণ অত্যন্ত কার্যকর।

৩) পিত্ত থলিতে সংক্রমণ: মধু-দারুচিনির মিশ্রণ পিত্ত থলির সংক্রমণ রোধ করতে সক্ষম। মধু দারুচিনিতে অ্যান্টি ব্যাক্টোরিয়াল উপাদান আছে, যা পিত্ত থলিকে বাইরের ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণের হাত থেকে রক্ষা করে।

৪) বাত/আর্থারাইটিস-এর সমস্যা: একাধিক সমীক্ষায় দেখা গেছে, মধু দারুচিনির পানি পান করার ফলে খুব অল্প সময়ের মধ্যে বাতের ব্যথা কমে যায়। এক গ্লাস গরম পানিতে দুই টেবিল চামচ মধু আর এক টেবিল চামচ দারুচিনির গুঁড়ো মিশিয়ে নিন। এই পানি প্রতিদিন নিয়ম করে সকালে ঘুম থেকে উঠে আর রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে পান করুন। কয়েক সপ্তাহের মধ্যে এটি আপনার বাতের ব্যথা কমিয়ে দেবে।

৫) চুল পড়া রোধে: অলিভ অয়েলের সঙ্গে ১ টেবিল চামচ মধু, ১ চা চামচ দারচিনির গুঁড়া মিশিয়ে পেষ্ট তৈরি করে নিন। এটি চুলের ফাঁকা জায়গায় লাগান (যেখান থেকে চুল পড়ে গেছে সেখানে)। ১৫ মিনিট পর উষ্ণ গরম পানি দিয়ে চুল শ্যাম্পু করে ধুয়ে ফেলুন। এটি নতুন চুল গজাতে সাহায্য করবে।

৬) নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ দূর করতে: উষ্ণ গরম পানিতে মধু ও দারচিনি মেশান। প্রতিদিন সকালে এই মিশ্রণ পান করুন। এটি আপনার মুখের দুর্গন্ধ কাটাতে সাহায্য করবে।

৭) ওজন কমাতে: শরীরের বাড়তি ওজন কমাতেও মধু দারচিনির জুড়ি মেলা ভার। একাধিক সমীক্ষায় দেখা গেছে, দারচিনি ও মধু খুব দ্রুত চর্বি কমাতে সাহায্য করে। প্রতিদিন দারচিনি গুঁড়ো ও মধু দিয়ে ফোটানো এক গ্লাস পানি খালিপেটে পান করুন। এটি আপনার ওজন কমাতে সাহায্য করবে।