ছয় বছর পর ধর্ষকের সঙ্গে দেখা, অতঃপর…

0
290

ছয় বছর পর- নিজের জীবনে ঘটে যাওয়া সেই দুঃসহ স্মৃতি এখনও তাড়া করে বেড়ায় তাকে। ভুলতে পারেন না জীবনে ঘটে যাওয়া ওই ভয়ঙ্কর ঘটনাটি। তবে দীর্ঘ ছয় বছর পর ভয়ঙ্কর সেই ব্যক্তিটির হঠাৎ দেখা পায় ভুক্তভোগী সেই মেয়েটি এবং তার সাহসিকতায় ধরা পড়ে অপরাধী।

২০০৭ সালের আগস্টে আটলান্টার একটি সাবওয়ে স্টেশন দিয়ে যাচ্ছিল মেয়ে। তাকে ডেকে থামান তারই পরিচিত এক ব্যক্তি। লিফট দেওয়ার কথা বলে তুলে নেন গাড়িতে।

কিন্তু হঠাৎই তিনি খেয়াল করেন, যে রাস্তায় যাবেন গাড়ি সেই রাস্তায় না গিয়ে একটি নির্জন পথে চলছে। পরিচিত ওই ব্যক্তিকে গাড়ি থামাতে বলেন কিন্তু গাড়ি থামিয়ে একটি পরিত্যক্ত বাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাকে বন্দুকের ভয় দেখিয়ে ধর্ষণ করে ওই ব্যক্তি।

অভিযুক্ত ব্যক্তি ওই মেয়েকে সেখানেই রেখে চলে যায়। কোনো রকমে সেখান থেকে পালিয়ে আসেন তিনি। কিন্তু পুলিশের কাছেও যেতে পারেননি। কারণ ওই ব্যক্তির নাম জানা ছিল না। তাকে আর খুঁজেও পাওয়া যায়নি। তবে আত্মীয় ও বন্ধুদের জানিয়ে ছিলেন তিনি।

ঘটনার দীর্ঘ ছয় বছর পর ২০১৩ সালের ১৩ অক্টোবরে মার্টা স্টেশনে ফের ওই লোকটিকে দেখতে পান মেয়েটি। ট্রেন ধরার জন্য দাঁড়িয়ে ছিল সে। লোকটিকে দেখেই চিনতে পারেন, মুহূর্তের জন্য ভয় পান। কিন্তু মনে শক্তি সঞ্চয় করে চিৎকার শুরু করেন তিনি। তার চিৎকারে ছুটে আসে পুলিশ এবং তার অভিযোগের ভিত্তিতে লোকটিকে গ্রেফতার করা হয়।

মার্টা পুলিশ আটলান্টা পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করে জানতে পারেন ওই ব্যক্তির বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ রয়েছে। বেশ কয়েকজন নারীকে যৌন নির্যাতন ও শ্লীলতাহানি এবং ডাকাতির অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। পরে অ্যান্টনিও হোয়াইট (৫৪) নামের ওই ব্যক্তিকে আটলান্টা পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

আটক হওয়া ওই ধর্ষককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। ফালটুন কাউন্টির অ্যাটর্নি পল হোয়ার্ড জানিয়েছেন, জর্জিয়ার ওই ব্যক্তির যাবজ্জীবন কারাদণ্ড হয়েছে। ছয় বছর পর তাকে চিনতে পারা ওই নির্যাতনের শিকার নারী পরিস্থিতি মানিয়ে নিতে সক্ষম হয়েছেন।

মাকে ধর্ষণ, মেয়েকে নিপীড়ন, ছেলেকে অপহরণ করল পুলিশ

পুলিশের এক সহকারী কমিশনারের বিরুদ্ধে এক নারীকে ধর্ষণ এবং ওই নারীর অল্প বয়সী মেয়েকে নিপীড়নের অভিযোগ উঠেছে। পুলিশের তরফ থেকে শুক্রবার এ তথ্য জানানো হয়।

গত জুলাইয়ে রামেশ দাহিয়া নামের ওই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন এক নারী। তিনি জানিয়েছেন, তার স্বামী ছিলেন একজন সন্ত্রাসী। তার মৃত্যুর পর তিনি ওই পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন।

জুলাইয়ে অভিযোগ দায়েরের পরও ওই পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় গত ১৮ সেপ্টেম্বর ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আবারও অভিযোগ দায়ের করেন ওই নারী। পুলিশ জানিয়েছে, ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে নারীকে ধর্ষণ, তার অল্প বয়সী মেয়েকে নিপীড়ন এবং তার ছেলেকে অপহরণের অভিযোগ আনা হয়েছে।

পুলিশ বলছে, এই ঘটনায় একটি এফআইআর দায়ের করা হয়েছে এবং এই মামলা ক্রাইম ব্র্যাঞ্চে স্থানান্তর করা হয়েছে। কারণ এটি একটি স্পর্শকাতর ঘটনা এবং এর যথাযথ তদন্ত প্রয়োজন।

তবে রামেশ দাহিয়া নামের ওই পুলিশ কর্মকর্তা বলছেন, তিনি ওই নারীকে টাকা ধার দিয়েছিলেন। তিনি তার পাওনা টাকা পরিশোধের তাগাদা দেয়ায় ওই নারী তার বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনেছেন।

তাড়াতাড়ি গর্ভবতী হতে চান? তাহলে এই সহজ উপায়গুলি অনুসরন করুন

মা হওয়ার অনুভূতি শব্দের মধ্যে প্রকাশ করা যায় না। আমরা শুধুমাত্র বলতে পারি যে কোন মহিলার সবচেয়ে সুন্দর অনুভূতি এটা । কিন্তু আজকালের লাইফস্টাইল ও মহিলাদের ইনফার্টিলিটির বৃদ্ধির সমস্যার কারণে অনেক নারী মা হওয়ার সুখ থেকে বঞ্চিত হয় অথবা তাদের গর্ভধারণে অনেক সমস্যা দেখা দেয়।

যাই হোক, যদি আমরা আধুনিক হওয়ার লাখ দোহাই দিই, অস্বীকার করা যাবে না যে আজও আমাদের সমাজে মা না হওয়ার কারনে সবসময়ই নারীদের দোষ দেওয়া হয়।

এটি আরেকটি বিষয় যে বিজ্ঞানও প্রমাণ করেছে যে এর জন্য নারী ও পুরুষ উভয়েই দায়ী। বেশ! আপনি যদি একই রকম সমস্যার মুখোমুখি হন তাহলে আমরা আপনার জন্য এমন কিছু উপায় নিয়ে এসেছি যা আপনার পক্ষে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব গর্ভধারণের জন্য দরকারী হতে পারে। দেরী করবেন না অবিলম্বে পড়ুন।

ডিম্বস্ফোটন এর সময়ের মধ্যে যৌনসংগম: প্রতিমাসে মহিলাদের ডিম্বাশয়ে একটি ডিম্বাণু গঠিত হয়, যা ফলোপিয়ান টিউবগুলিতে থাকে। শুক্রাণু সেখানে পৌঁছে ডিম কে নিষেচিত করে। একে সাধারণ ভাষাতে ফার্টিলাইজেসন বা নিষেচন বলা হয়।

১৪ দিনে হয় ডিম্বস্ফোটন: মহিলাদের মাসিক চক্রের ১৪ দিনে ডিম্বস্ফোটন দেখা দেয়। এই সময় সেক্স করলে গর্ভাধানের সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়। অতএব, মনে রাখবেন ডিম্বস্ফোটনের সময় সহবাস করা আপনার জন্য ভালো হতে পারে।

মিশনারি অবস্থান: গর্ভধারণের জন্য শুধুমাত্র সহবাস করাই যথেষ্ট নয়, সেক্স করার ধরন অনেকরকম হয়ে থাকে যা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। গর্ভধারণের জন্য মিশনারি অবস্থান একটি শ্রেষ্ঠ অবস্থান হিসাবে বিবেচিত করা হয়।

ঔষধ গ্রহণ: নারীদের দ্বারা সেবন করা কিছু ওষুধ আছে যা গর্ভধারণ থেকে নারীকে প্রতিরোধ করে। যেমন ইব্রুফেন বা অ্যাসপিরিন ইত্যাদি। উপরন্তু, কেমোথেরাপি নেওয়ার সময় গ্রহণ করা ঔষধ চিরতরে গর্ভধারণ করতে আপনাকে প্রতিরোধ করতে পারে।

অন্যান্য পদ্ধতি সম্পর্কে আরও জানুনঃ-

পুরুষও এমনকি এই ওষুধ নেবেন না: টেসটোস্টেরন এর সাপ্লিম্যান্ট, অ্যানাবোলিক স্টেরয়েড ঔষুধ, যা বডি বিল্ডিংয়ের সময় খাওয়া হয়। তারা আসলে প্রজনন ক্ষমতাকে প্রভাবিত করে । এই কারণে পুরুষদের শুক্রাণু নিষ্ক্রিয় হয়ে যায়।

ডগি অবস্থান: ডগি অবস্থানে করলে, লিঙ্গটি গর্ভাশয়ের গ্রীবা অবধি পৌঁছে যায় । এই অবস্থানের কারণে পুরুষের শুক্রাণু মহিলাদের যোনির মধ্যে জমা হয়, এরফলে গর্ভাধানের সম্ভাবনা বেড়ে যায়।

অ্যালকোহলের সেবন: গবেষণার মতে, মহিলাদের মদ্যপান তাদের গর্ভধারণের সম্ভাবনা হ্রাস করে। এমনকি এখন মহিলারা তার ডিম্বস্ফোটনের দিনের মধ্যেও সেক্স করছেন । তবে অ্যালকোহল মহিলাদের স্বাস্থ্যের উপর এমন একটি খারাপ প্রভাব ফেলে যে তারা গর্ভধারণের একটি সমস্যা অনুভব করবেন ।

বীর্যের ঘনত্ব হয় কম: মহিলাদের সাথে সাথে পুরুষদেরও অ্যালকোহল থেকে দূরত্বও বজায় রাখা উচিত, কারণ বেশি পরিমাণে মদ পান করলে শরীর কমজোরি হয়ে যায়। এই কারণে, টেসটোস্টেরনের পরিমাণ রক্তে ​​বৃদ্ধি পায় এবং শুক্রাণুর ঘনত্ব কমে যায়।

নারীরা এমনভাবে বাড়ান প্রজনন ক্ষমতা: ভালো খাবার ভালো স্বাস্থ্যের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। খাওয়ায় বাদাম, আখরোট, জলপাই তেল, মাছ, মটর, দই, পালং, টমেটো, বীটরুট ইত্যাদি নারীর প্রজনন ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

পুরুষরাও এই জিনিস খেতে পারে: পুরুষ দস্তা যুক্ত খাদ্য যেমন- পালং এবং কুমড়া খান। দস্তা শুক্রাণুর সংখ্যা এবং গতিশীলতা বৃদ্ধি করে । এছাড়া, সয়াবিন এবং সোয়া দুধ এড়িয়ে চলা ভালো কারণ তারা শুক্রাণুগুলি মন্থর বা ধ্বংস করে দেয় ।

ওজন নিয়ন্ত্রণ: স্বাভাবিক ওজন বজায় রাখুন ২০ থেকে ২৪ বিএমআই পর্যন্ত। ওভারওয়েট হওয়ার কারণে মাসিক চক্রটি ব্যাহত হতে পারে, যার কারণে ডিম্বস্ফোটন ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। এই জন্য শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকুন। নিয়মিতভাবে যোগ এবং ব্যায়াম করুন।

ডাক্তারের সাথে পরামর্শ করুন: এছাড়াও ডাক্তাদের সাথে আপনার মেডিকেল ইতিহাস শেয়ার করুন, আপনি যদি উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস, পিসোওস, থাইরয়েড বা অন্য কোনো স্বাস্থ্য সমস্যার জন্য কোনও ঔষধ গ্রহণ করছেন, তবে তাদের জানান।

এই পদ্ধতিতে আপনিও মা হওয়ার আনন্দ গ্রহণ করতে পারেন এবং পুরুষদের জন্য এই ব্যাপারটা জেনে রাখা খুব জরুরী যে পিতা হওয়ার জন্য আপনারও হাত ততটাই আছে যতটা আপনার স্ত্রীর ।