প্রকাশ্যে চুমু বা আলিঙ্গনরত অবস্থায় ধরা পড়লে জরিমানা ৫০ টাকা!

0
91

প্রকাশ্যে চুমু- প্রকাশ্যে চুমু বা আলিঙ্গনরত অবস্থায় থাকার অপরাধে শহরের এক যুগলের কপালে গত সোমবার গণপ্রহার জুটেছে ভারতের কলকাতার মেট্রোতে। আর এ ঘটনা ঘটিয়েছে সম্মিলিত একদল প্রতিবাদী প্রৌঢ়।

তাছাড়াও প্রকাশ্যে আলিঙ্গনরত অবস্থায় ধরা পড়লে ৫০ টাকা জরিমানা করে পুলিশ এ ঘটনা নিয়ে প্রতিবাদের ঝড় এখনো থামেনি। এই ঘটনায় নীতি পুলিশের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।

এ নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন প্রগতিশীলরাও। রক্ষণশীল ভাবনায় বিশ্বাসী কেউ কেউ বলছেন, আলিঙ্গন ব্যক্তিগত বিষয়, তা প্রকাশ্য দিবালকে জাহির না করাটাই শ্রেয়।

তারা মনে করেন, মেট্রোতে আলিঙ্গন করা অপরাধ এবং তার জন্য ওই যুগল উচিত শিক্ষা পেয়েছে। এখন অনেকেরই প্রশ্ন, জনসমক্ষে প্রিয়জনকে জাপটে ধরা কি অপরাধ? এতে কি ‘অভিযুক্ত’দের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া যায়?

দিল্লি- ভারতের রাজধানীতে প্রেমিক যুগলরা প্রকাশ্যে আলিঙ্গনরত অবস্থায় ধরা পড়লে ৫০ টাকা জরিমানা করে পুলিশ। অনেক সময়ই পুলিশি হেনস্থার সম্মুখীন হয় যুগলরা।

বাড়িতে জানিয়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে ঘুষও নেয় পুলিশ। মুম্বাই- কোনো যুগলকে প্রকাশ্যে চুমু অথবা আলিঙ্গনরত অবস্থায় পাকড়াও করলে ১৯৫১ সালের বম্বে পুলিশ আইন অনুযায়ী মামলা রুজু করতে পারে পুলিশ।

কলকাতা- যৌন অভিব্যক্তি নিয়ে কোনো যুগল প্রকাশ্যে চুমু অথবা আলিঙ্গন করলে তা আইনত অপরাধ। নন্দনের মতো সংস্কৃতির পীঠস্থানে চুমু অথবা আলিঙ্গন কোনো অপরাধ নয়। তবে কোনো ‘লাভার পয়েন্টে’ চুমু অথবা আলিঙ্গনে কোনো প্রতিবেশীর আপত্তি থাকলে সে ক্ষেত্রে আইনি ব্যবস্থা নিতে পারে পুলিশ।

বেঙ্গালুরু- প্রকাশ্যে ঘনিষ্ঠ অবস্থায় ধরা পড়লে এই শহরের পুলিশ অভিযুক্তকে জিজ্ঞাসাবাদ করে। চেন্নাই- এই প্রাচীন শহর প্রেমিকদের স্বর্গরাজ্য। আলিঙ্গনে এই শহর একেবারেই উদার।

হায়দরাবাদ- নিজামের এই শহর এখনো রক্ষণশীল ভাবনায় বিশ্বাসী। যুগলদের অতি ঘনিষ্ঠতায় বেড়ি পরাতে ২৪ ঘণ্টা নজরদারি চালানো হয়। পুণে- প্রকাশ্যে চুমু অথবা আলিঙ্গনে ভারতীয় দ-বিধির ২৯৪ ধারা অনুযায়ী অশ্লীলতার অভিযোগে অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করতে পারে পুলিশ। দোষ প্রমাণ হলে কারাদ-ও হতে পারে।

লখনউ- প্রকাশ্যে চুমু অথবা আলিঙ্গনে লখনৌতে কোনো নির্দিষ্ট আইনি বাধা নেই। আমেদাবাদ- বিপি আইন ১১০ অনুযায়ী গুজরাটে প্রকাশ্যে চুমু এবং আলিঙ্গন বেআইনি।