হায় উন্নত বিশ্ব! ফ্রান্সের আদালত ১১ বছরের শিশু ধর্ষণে যে শাস্তি দিল, জানলে বিস্মিত হবেন!

0
83

প্যারিসের পাশে মন্টম্যাগনি এলাকার ২৮ বছর বয়সী এক যুবক গত এপ্রিল মাসে ১১ বছরের একটি মেয়ে শিশুকে প্রলুব্ধ করে তার বাসায় নিয়ে গিয়েছিল এবং তার উপর যৌন নিপীড়ন চালিয়েছিল।

এ ঘটনায় শিশুটির পরিবার পরবর্তীতে আদালতে মামলা দায়ের করে। গত ছয় মাস ধরে সেই মামলার বিচার হওয়ার পর ফ্রান্সের আদালত রায় দিয়েছে যে, ১১ বছরের মেয়ে শিশুটি স্বেচ্ছায় ২৮ বছর বয়সী পুরুষের সাথে যৌন সম্পর্ক করেছে। কারণ দৃশ্যত সে শারীরিক বা মৌখিকভাবে কোনো প্রতিবাদ করেনি।

এই মামলার বিচারে ফরাসী আদালত ওই যুবককে ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত করতে পারেনি। কারণ হিসেবে আদালত যুক্তি দেখিয়েছে যে, সেখানে কোনো ধরণের আক্রমণাত্বক ঘটনা ঘটেনি, এমনকি কোনো হুমকি প্রদানও করা হয়নি। তাছাড়া মেয়ে শিশুটির দিক থেকে কোনো প্রতিরোধ গড়া বা বাধা প্রদান করাও হয়নি।

কুয়াশাচ্ছন্ন জানালার ধারে একা বসে আছে মর্মাহত শিশুটি
ধর্ষণের অভিযোগ খারিজ করে আদালত ২৮ বছর বয়সী ওই যুবককে নাবালক শিশুকে অপব্যবহারের (অ্যাবইউজ) দায়ে দোষী সাবস্ত করেছে, যে অপরাধের শাস্তি নগণ্য।

আদালতের রায়ের পরও শিশুটির পরিবার দাবী করছে যে, শিশুটিকে সেখানে ধর্ষণ করা হয়েছিল। তাদের বক্তব্য হলো, ‘মারাত্বক বেদনাদায়ক ওই ঘটনার সময় শিশুটি ভয়ে আতঙ্কে অবশ হয়ে পড়েছিল। তাই সে প্রতিবাদ করতে পারেনি।’

শিশুটির মা ফ্রান্সের একটি সংবাদভিত্তিক ওয়েবসাইটকে জানায়, ‘সে হয়ত ভেবেছিল এটা অনেক দেরী হয়ে গিয়েছে। এখন তার আর প্রতিবাদ করার কোনো সুযোগ নেই। তাছাড়া এখন আর প্রতিবাদ করা না করা সমান ব্যাপার। এরকম ভাবনা থেকেই সে হয়ত কোনো শারীরিক বা মানসিক প্রতিরোধ না গড়ে ধর্ষনে সায় দিয়েছে।’

উন্নত বিশ্বের আইনি জটিলতায় অসহায় মেয়ে শিশুটি কত একা!
এই ঘটনায় ফ্রান্স জুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়েছে। বিষেশজ্ঞরা দাবী করছেন, পরিস্থিতির হাতে নিজেকে শপে দেয়া আর সম্মতি দেয়া এক কথা নয়।

এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ফ্রান্সের শিশু অধিকার সংগঠনগুলো নতুন আইন প্রনয়ণের দাবী তুলেছে। তারা ইংল্যান্ডের মত আইন প্রণয়নের মাধ্যমে পুরুষের যৌন লালসার শিকার হওয়া থেকে নারী শিশুদের মুক্ত রাখতে সরকারের প্রত আহ্বান জানিয়েছে।

যুক্তরাজ্যের আইনে ১৩ বছরের নীচের শিশুর শরীরে ইচ্ছাকৃত পুরুষাঙ্গ প্রবেশ করানো ধর্ষণ বলে বিবেচিত হয়। আর সেখানে ১২ বছরের বয়সের নীচের শিশু কোনো ধরণের যৌন কর্মে সম্মতি দেয়ার আইনি অধিকার রাখে না।