গরমে সুস্থ থাকার চাবিকাঠি ঝিঙে, অসুখ-বিসুখ কাছে ঘেঁষবে না

0
158

খাবারে অরুচি হলে কচি ঝিঙে ও শিং মাছের ঝোল খান অনেকে। তবে কুচো চিংড়ি আর ঝিঙের যুগলবন্দীর কোনো জবাব নেই। ভাজা কিংবা আলু ঝিঙে পোস্তও লা-জবাব! তবে, কেবল খেতেই দারুণ নয়, ঝিঙের গুণও রয়েছে প্রচুর! এক কথায় ঝিঙে ‘ঝিঙ্গা-লা-লা’… সুস্থ থাকতে ঝিঙে খাওয়া মাস্ট! কারণ–

ঝিঙে রক্তকে দূষণ থেকে রক্ষা করে। লিভারের জন্যও উপকারি। ঝিঙের রস খেলে লিভারের কর্মক্ষমতা বাড়ে। বিশেষ করে লিভারে অ্যালকোহলের ক্ষতিকর প্রভাব দূর করে। জন্ডিসের আদর্শ পথ্যও ঝিঙে।

ঝিঙে প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক। শরীরের বিষাক্ত উপাদান বা টক্সিন বের করে দেয়। নিয়মিত ঝিঙে খেলে ত্বক ভাল থাকে। বিভিন্ন রোগজীবাণু, ভাইরাস-ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ থেকে শরীরকে রক্ষা করে।

ঝিঙেতে রয়েছে পেপটাইড এনজাইম যা সুগার কমায়, রক্তে ইনসুলিনের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে। ফলে ডায়াবিটিক রোগিদের জন্য ঝিঙে মহৌষধ!

ঝিঙে ফাইবারে ভরপুর! কাজেই কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। অ্যাসিডিটি ও আলসার সারায়। পাকস্থলীর কার্যক্ষমতা বৃদ্ধি করে খাবার হজমে সাহায্য করে। পাইলস-এও খুব উপকারি!

ঝিঙেতে খুব কম ক্যালরি রয়েছে। ফলে, ওজন কমায়, কোলেস্টেরল-ও নিয়ন্ত্রণে রাখে! প্রচুর পরিমাণে জল রয়েছে, কাজেই ঝিঙে খেলে বারবার খাওয়ার ইচ্ছে যাকে আমরা বলি ‘চোখের খিদে’ কমে যায়। তাই ডায়েটিং করলে, অবশ্যই খাবারের তালিকায় ঝিঙে রাখুন।